অপরাধ ও বিচ্যুতির মধ্যে পার্থক্য

Crime and Deviance, অপরাধ ও বিচ্যুতির মধ্যে পার্থক্য
নিম্নে অপরাধ ও বিচ্যুতির মধ্যে পার্থক্য আলোচনা করা হলো।

১. সংজ্ঞা

আইন লঙ্ঘনই অপরাধ। সমাজ ও আইন কর্তৃক অস্বীকৃত ও অস্বাভাবিক আচরণই অপরাধ হিসেবে চিহ্নিত, সমাজে এমন অনেক কাজ ও আচরণ লক্ষ করা যায় যা আইননিষিদ্ধ না-হলেও সামাজিক স্বাভাবিক ও কাঙ্ক্ষিত আচরণের পরিপন্থি তা বিচ্যুতি হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়।

২. আওতা

আইনবিরোধী বা আইনভঙ্গমূলক কাজ অপরাধের আওতায় পড়ে, সামাজিক মূল্যবোধের পরিপন্থি কাজ বা আচরণ বিচ্যুতির পর্যায়ে পড়ে।

৩. আচরণ

সব অপরাধই সামাজিক বিচ্যুতিমূলক আচরণ, সব সামাজিক বিচ্যুতিমূলক আচরণ অপরাধ নয়।

৪. সামাজিক পরিবর্তন

সামাজিক পরিবর্তনের প্রক্রিয়ায় সামাজিক বিচ্যুতিমূলক আচরণের কোনো কোনো দিক কখনো বা অপরাধমূলক আচরণে পরিণত হতে পারে, যতই সামাজিক পরিবর্তন ঘটুক না কেন অপরাধ সব সময় বিচ্যুতিমূলক আচরণের মধ্যে পড়ে।

৫. ধরন

কোনো কাজ আইন দ্বারা নিষিদ্ধ হলে অথবা আইন অনুসারে নির্ধারিত কর্তব্যে অবহেলা হলে তা অপরাধের পর্যায়ে পড়ে, সমাজের ঐতিহ্য, মূল্যবোধ ও রীতি-নীতির দৃষ্টিকোণ থেকে যেসব আচরণ অসংলগ্ন, খাপছাড়া, অনাকাঙ্ক্ষিত এবং সর্বোপরি সমাজের ঐতিহ্য ও মূল্যবোধবিরোধী তাহলো বিচ্যুতি।

৬. সঠিক কাজ

কোনো রাজনৈতিক কর্তৃপক্ষ বা সরকার কর্তৃক নিষিদ্ধ কাজ আচরণ প্রদর্শন করলে তা অপরাধ বলে গণ্য হয়, সমাজের মূল্যবোধ, রীতি-নীতি, ঐতিহ্য ইত্যাদির মাপকাঠিতে যেসব কাজ বা আচরণ অনাকাঙ্ক্ষিত এবং সমর্থিত অথচ আইনে নিষিদ্ধ নয় তা অবশ্যই সামাজিক বিচ্যুতি।

৭. নিয়ন্ত্রণ

অপরাধ এমন কাজ বা আচরণ যা অনানুষ্ঠানিক কোনো বাহন বা সংস্থা দ্বারা পর্যাপ্তভাবে নিয়ন্ত্রণ করা যায় না, বিচ্যুতিমূলক আচরণ নিয়ন্ত্রণ করা অপরাধ থেকে অপেক্ষাকৃত সহজ।

৮. শাস্তি

অপরাধমূলক আচরণের জন্য রাষ্ট্র বা সমাজকর্তৃক শাস্তি নির্ধারিত থাকে, বিচ্যুতিমূলক আচরণের জন্য শাস্তি নির্ধারিত নয়।

পরিশেষে বলা যায়, অপরাধ ও বিচ্যুতি মূলত এক ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত এবং আইনবিরোধী আচরণ; যা সমাজের সদস্য কর্তৃক গ্রহণযোগ্য নয়।

অপরাধ ও বিচ্যুতির মধ্যে পার্থক্য সংক্রান্ত কোনো মন্তব্য থাকলে অবশ্যই আপনার মন্তব্য কমেন্ট এ জানান ধন্যবাদ পোস্টটি পড়ার জন্য।

আরো পড়ুন:দারিদ্র বলতে কী বুঝ? দারিদ্র কত প্রকার ও কী কী?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *